টুইন টাওয়ার হামলার দুই দশক পূর্তিতে জো বাইডেন মার্কিন জাতীয় ঐক্যকে বিপন্ন করে তুলেছিল ৯/১১

যুক্তরাষ্ট্রে টুইন টাওয়ার হামলার দুই দশক পূর্ণ হয়েছে গতকাল। ঘটনাটিকে স্মরণ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার ঘটনাটি গোটা মার্কিন জাতীয় ঐক্যকেই বিপন্ন করে তুলেছিল। মার্কিন মানসে ভয়-ক্রোধ, অসন্তোষ ও হিংসার মতো অন্ধকারতম প্রবৃত্তিগুলোকে উন্মোচিত করে তুলেছিল ঘটনাটি। এর জের বহন করতে হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সাধারণ মুসলিম নাগরিকদের। ফলে বিপন্ন হয়ে উঠেছিল গোটা জাতির ঐক্য। আবার জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনীয়তাকেও এ ঘটনাই সামনে নিয়ে এসেছিল।

যুক্তরাষ্ট্রে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার ঘটনায় নিউইয়র্ক সিটি, ভার্জিনিয়ার আরলিংটন ও পেনসিলভানিয়ার শ্যাংকসভিলে ৯০টিরও বেশি দেশ থেকে আগত ২ হাজার ৯৭৭ জন মানুষের মৃত্যু হয়। আহত হয় আরো সহস্রাধিক। হোয়াইট হাউজ থেকে প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় জো বাইডেন তাদের পরিবারের উদ্দেশে বলেন, গোটা বিশ্ব আপনাদের ও আপনাদের প্রিয়জনদের স্মরণ করছে।

তিনি বলেন, সময় যতই পেরুক না কেন, তাদের স্মরণ করতে গেলে পুরনো ক্ষতগুলো আরো বেদনাদায়কভাবে তাজা হয়ে ওঠে। মনে হয়, এখনই শুনতে পাওয়া কিছুক্ষণ আগের ঘটনা।

ভাষণে হামলার পর জীবন বাজি রেখে উদ্ধারকাজে নিয়োজিত দমকলকর্মী, পুলিশ কর্মকর্তা ও চিকিৎসাকর্মীদের প্রশংসা করেন জো বাইডেন। তিনি বলেন, ওই সময় যারা উদ্ধার কার্যক্রম চালাতে গিয়ে ঝুঁকি নিয়েছেন ও নিজেদের ভবিষ্যেক উৎসর্গ করে দিয়েছিলেন তাদের সবার প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা।

তিনি বলেন, ৯/১১-এর ধারাবাহিকতায় মার্কিন নাগরিকদের মধ্যে সাধারণ একটি বৈশিষ্ট্য তৈরি হয়; সেটি হলো প্রকৃত জাতীয় ঐক্যের ধারণা। ঐক্য ও সহনশীলতার পাশাপাশি ওই সময়ে আঘাত কাটিয়ে নিজেদের ফিরে পাওয়ার এক সক্ষমতা তৈরি হয়। তৈরি হয় এক ৯/১১ প্রজন্ম, যারা সন্ত্রাসের উত্থানের মুখেও রক্ষা করার ও সেবা দেয়ার মনমানসিকতা নিয়ে এগিয়ে এসেছিল। একই সঙ্গে ঘটনার জন্য দায়ী সন্ত্রাসীদের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করতেও এগিয়ে এসেছিল তারা। সবাইকে তারা দেখাতে চেয়েছে, যদি কেউ যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষতি করতে চায়, তাহলে আমরা তাকে খুঁজে বের করব ও এর উপযুক্ত প্রতিদান দেব।

তবে ওই ঘটনা মার্কিন জনমানসের কিছু অন্ধকার দিকও তুলে এনেছিল বলে ভাষণে স্বীকার করেন জো বাইডেন। তিনি বলেন, আমরা দেখতে পেয়েছি ওই ঘটনার ফলে মানব চরিত্রের কিছু অন্ধকারতম প্রবৃৃত্তিও বেরিয়ে এসেছিল। শান্তিপূর্ণ এক ধর্মের অনুসারী মুসলিম মার্কিনদের বিরুদ্ধে এক ধরনের ভয় ও ক্রোধ, অসন্তোষ এবং হিংসার প্রবৃত্তি জন্ম নিতে দেখেছি আমরা। আমাদের গোটা জাতীয় ঐক্যকে বিপন্ন হয়ে পড়তে দেখেছি। আবার আমরা এ-ও শিখেছি, এমন এক জিনিস; যাকে কখনো ভাঙতে দেয়া যাবে না। এ একতাই আমাদের পরিচয়কে তৈরি করেছে।

জো বাইডেন গতকাল ৯/১১-এর হামলার সময়ে ছিনতাইকৃত উড়োজাহাজগুলো বিধ্বস্ত হওয়ার প্রতিটি স্থানই পরিদর্শন করেছেন। সকালে নিউইয়র্কে গ্রাউন্ড জিরোতে (সন্ত্রাসীদের ছিনতাইকৃত উড়োজাহাজের আঘাতে ধসে পড়া ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের টুইন টাওয়ার যেখানে অবস্থিত ছিল) আয়োজিত এক স্মারক অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। সাবেক দুই মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ও বারাক ওবামা এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন। সেখানে স্থানীয় সময় অনুযায়ী সকাল ৮টা ৪৬ মিনিটে (টুইন টাওয়ারে প্রথম উড়োজাহাজ আঘাত হানার সময়) স্থানীয় জনসাধারণসহ নীরবতা পালন করে ১১ সেপ্টেম্বরের নিহতদের স্মরণ করেন তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here